ইউনিকোড বাংলা স্ক্রিপ্ট নিয়ে একজন রিশিদা

Richard Ishida - a Bengali script activist (ছবি: Digital-web.com)

রিশিদা
(ছবি: Digital-web.com^)

ইউনিকোড বাংলা স্ক্রিপ্ট নিয়ে বেশ সুন্দর আর গোছানো কাজ করেছেন Rishida। তাঁর কাজগুলো পাওয়া যাবে তাঁর নিজের ওয়েবসাইটে^। বাংলা স্ক্রিপ্টিং নিয়ে তাঁর লেখা নিচের পোস্টগুলো বেশ সমৃদ্ধ:

কে এই রিশিদা? তাঁর একটি সাক্ষাৎকার সংগ্রহ করে দিয়েছেন শাবাব মুস্তাফা, পাওয়া যাবে নিচের লিংকে:

এতটুকুতো অন্তত পরিষ্কার, তাঁর পুরো নাম Richard Ishida। বাকিটা ঐ সাক্ষাৎকার আর তাঁর নিজের সাইট আর কাজগুলো থেকে জেনে নেয়া যেতেই পারে।

শ্রদ্ধা জানাই তাঁর কাজের প্রতি… (Kudos to his works for Bengali (Bānglā) )

-মঈনুল ইসলাম
wz.islam@gmail.com

ঈশ্বর ধারণা

বিজ্ঞানকে জিজ্ঞেস করলে বলবে, “ঈশ্বর বলে কেউ আছেন কি নেই, তা আমি জানি না।” – বিজ্ঞান “আছে”ও বলবে না, “নেই”ও বলবে না – অর্থাৎ বিজ্ঞান এক্ষেত্রে আস্তিকও না, নাস্তিকও না।

কিন্তু কেন টানা গ্রীষ্মের দাবদাহের পরে কোনো এক শুক্রবারেই (মসজিদে মসজিদে ক্ষমাপ্রার্থণামূলক বৃষ্টির জন্য দোয়ার পরেই) বৃষ্টি দিয়ে ঈশ্বর তাঁর নিজের অস্তিত্ব জানান দিবেন?

কিন্তু কেন কোন এক শরতে, দূর্গা দেবীর পৃথিবীতে আগমনের দিন ভূমিকম্প হওয়ার পরে মুন্নী সাহা বললেন, এবার দেবী “দোলায় চড়ে এসেছেন”, আর সেজন্যেই ভূমিকম্প হয়েছে। (মুন্নী সাহার ব্যক্তিগত বাজে পারফর্মেন্সের সাথে একে মেলানো ভুল হবে)

সামথিং ইয রিয়্যালী ফিশী!
বিজ্ঞানকে বোধহয় এখন নোয়েটিক্স-এর দিকে একটু গভীর নজর দিতে হবে…


সিলেটি ফোকলোর: নুযি ‘কইন্নার কিচ্চা

এক ছিল বাদশাহ, আর তাঁর এক ছেলে ছিল। সে ছিল মুসলমান আর তার এক বন্ধু ছিল হিন্দু, গোলাপ রাজা ছিল তার নাম। তারা দুজনে সারাক্ষণ পাশা খেলায় মেতে থাকতো। খেলার সময় একদিন হঠাৎ গোলাপ রাজা প্রস্তাব দিয়ে বসলো, “যে জিতবে, অর্থাৎ আমি যদি জিতি, তাহলে তোমার বোন আমার কাছে বিয়ে দিবে।” বাদশাহের ছেলেও তাতে রাজি হয়ে পাল্টা প্রস্তাব করলো, “আর যদি আমি জিতে যাই তাহলে তোমার বোন আমার কাছে…।” হলো কি, বাজির খেলায় জিতে গেলো গোলাপ রাজা। শর্তমতে তো বাদশাহের ছেলের তার বোনকে বিয়ে দিতে হবে গোলাপ রাজার সাথে। খেলাচ্ছলে একটা কথা বলে বসেছে বলে ফেঁসে গেছে; কিন্তু ভাই কোনোভাবেই…

Details

সেন্ট মার্টিন ভ্রমণ ২০১৪ (২)

« আগের পর্ব আমরা যখন সেন্ট মার্টিন পৌঁছে প্রথম দিন অতিবাহিত করা শেষ, তখনও রাস্তায় রয়েছে ঘুরবাজের হেকটিক ভ্রমণ দল। টেকনাফে, বিজিবি তাদের ট্রলার ছাড়ার অনুমতি দিল না, তারপর অনেক কাকুতি-মিনতি করে তারা যখন যাত্রা করবার অনুমতি পেল, তখন আঁধার নেমেছে চরাচরে… নাফ নদীতে… বঙ্গোপসাগরে… সূর্য অস্ত যাবার কিছুক্ষণ আগে টেকনাফে পৌঁছালো আমাদের ঘুরবাজ দল। টেকনাফ থেকে ট্রলার পাওয়া গেল ঠিকই, কিন্তু নিয়মতান্ত্রিকভাবে বিজিবি, নিরাপত্তার খাতিরে বিকাল ৫টার পরে কোনো ট্রলার ছাড়ার অনুমতি দেয় না। বিজিবি সেখানে সিরিয়াল ডেকে ডেকে ট্রলার ঘাটে ঢোকায়, হিসাব রাখে। হিসাবে ভুল দেখা দিলেই বুঝে নেয় ট্রলারটা বিপদে পড়েছে, তখন কোস্টগার্ড আর নৌবাহিনীকে জানায় তারা।…

Details

সেন্ট মার্টিন ভ্রমণ ২০১৪

বিয়ে করেছি ৭ মাস হয়ে যাচ্ছে, দেশের অবস্থা ভালো ছিল না বলে কোথাও বেরোন হয়নি। ভ্রমণ বাংলাদেশ থেকে একটা সস্ত্রীক ট্যুর আয়োজন করা হলো, কিন্তু অফিস থেকে ছুটি ম্যানেজ না করায় শেষ পর্যন্ত বন্ধুদের সাথে যোগ দিতে হলো। ওরা প্রায় একমাস আগে থেকে ট্যুরের প্রস্তুতি নিচ্ছে। তাদের ট্যুরের নাম: Hectic Tour to Saint Martin, বাংলা করলে দাঁড়ায় উত্তেজনাপূর্ণ। তবে এর অনেকগুলো মানের মধ্যে এটা একটা আরকি। কে জানতো বাকি মানেগুলোও এই ট্যুরের সাথে জুড়ে গিয়ে ট্যুরটাকে বিপদসংকুল করে তুলবে। সফরসঙ্গী মুনিম তো শেষ পর্যন্ত ঘোষণাই দিয়ে দিলো: ভবিষ্যতে আর কোনো ট্যুরে যদি হেকটিক ফেকটিক থাকে, তাহলে সে আর নেই। বোঝাই…

Details

জলপ্রপাতের খোঁজে – ছোট বোয়ালিয়া আর মালিখোলা ৩

« আগের পর্ব ~ জলপ্রপাত আবিষ্কার ~ খইয়াছড়া ঝরণার যৌবনে যুদ্ধে ব্রতী হবো বলে এসে হালকা চালের রজ্জু তীরোপার করে আমরা যখন বিশ্রাম নিচ্ছি, তুহিন ভাইয়ের জ্যাঠার মৃত্যু খবরে তিনি ঢাকার পথ ধরলেন। বাকি তিনজন, দুপুরের খাবার খেয়ে বাক্স-পেটরা সব ঐ খাবার হোটেলে রেখেই বেরিয়ে পড়লাম – নিকটস্থ একটা ঝরণা আবিষ্কারের জন্যে। ঢাকা চট্টগ্রাম মহাসড়কটা পেরিয়ে রাস্তার পূর্ব পাশের ফটিকছড়ির রাস্তা ধরে যেতে হবে। একটা সিএনজি নিয়ে নিলাম আমরা হোটেল মালিকের কথামতো… সিএনজি যাবে ব্র্যাক সেন্টার পর্যন্ত। বাকি পথটা হেঁটে যেতে হবে। মাঝখানে একবার সিএনজি নষ্ট হয়ে গেল, তখন নেমে আবুবকর আবারও ঝরণার বিষয়টা নিশ্চিত হয়ে নিলেন। ব্র্যাক পোল্ট্রির কাছে…

Details

জলপ্রপাতের খোঁজে – ছোট বোয়ালিয়া আর মালিখোলা ২

« আগের পর্ব ~ রজ্জু তীরোপার ~ আমাদের চারজনের দলটা মিরসরাইয়ের খইয়াছড়া ঝরণায় গেল পানির ঢলে গা ডুবাতে, কিন্তু সেখানে গিয়ে হতাশ হতে হলো। সেই হতাশা ঢাকতে আমরা যখন সঙ্গে করে আনা রশি দিয়ে রজ্জু তীরোপার করবার উদ্যোগ নিতে যাচ্ছিলাম, তখন দলনেতা, অভিজ্ঞ আবুবকর করছিলেন দোনমনা। নেতার এই সিদ্ধান্তহীনতায় আমাদের জন্য অপেক্ষা করছিল এক অশুভ পরিণাম। নেতার জায়গাটি কিভাবে যেন তুহিন ভাই নিয়ে নিলেন- ‘ভাই, আমারে দেন; আরে গ্রামে কত বাঁনছি রশি।’ তারপর কিভাবে রশি বাঁধলে কিভাবে কী হবে সেটা নিজ দায়িত্বে নিয়ে রশি বাঁধার কাজটি হাতে নিলেন। মূল রশিটা (rappelling rope) বেশ দামি, মূল জিনিসপত্রগুলো হলো ট্রেকার দল TrekkersBD’র,…

Details

জলপ্রপাতের খোঁজে – ছোট বোয়ালিয়া আর মালিখোলা

~ খইয়াছড়া ঝরণা ~ “রশিটা টেনে ধরেন, আপনার টানেই ও’ আসবে…” কথাটা ছুঁড়ে দিলেন কামাল ভাই, তুহিন ভাইয়ের উদ্দেশ্যে। রশিতে ঝুলে আছি আমি, নিচে খইয়াছড়া ঝরণার পানি বয়ে যাচ্ছে। বিয়ার গ্রিল্‌সের মতো করে রশির উপর শরীর রেখে এক পা ঝুলিয়ে সামনে এগোনোর চেষ্টা করছি। কিন্তু রশিটা দুলছে… একটু বেশিই দুলছে… ২০১৩ জুলাই ১ | সকাল ১১:০০ আবুবকরের মাথা খারাপ। হঠাৎ ফোন আমাকে, ‘আপনে কই?’ …‘আমি আসতেছি, কথা আছে।’ পনেরো মিনিটের মধ্যে আমার নতুন অফিস খুঁজে খুঁজে বের করে আবুবকর হাজির। মাথামুথা মনে হয় আসলেই খারাপ! এসে সাথে সাথেই ফেসবুক খুলে একটা ভিডিও দেখালেন। …সরাসরি আমাকে প্রশ্ন: ‘কালকে যাবেন কিনা?’ এ…

Details
GET TO TOP