কর্মক্লান্তি থেকে পালাতে – পাহাড়ের উল্টো পিঠে : শেষ পর্ব

জুরভারং পাড়ার বাসিন্দার জুমঘরে চাঁদনি রাতে পোকামাকড়ের সাথে ঘরবসতি আর সানথিয়াম সাইতারের (ঝরণার) উপরে উঠার শেষ গল্প…

বিস্তারিত

অফ-ট্র্যাক বান্দরবান ২০১২: সাজ-সরঞ্জাম

এই ভ্রমণের পরিকল্পনা ছিল (প্রথম পর্বে বলেছি) বগা লেক আর কিওক্রাডং পর্বত। সে হিসাবে যে পরিকল্পনা করা হয়েছিল, তা ছিল এরকম^। কিন্তু বাস্তবে সে পরিকল্পনা যে ধোপে টিকবে না এবং শেষ পর্যন্ত আমূল পরিবর্তন হয়ে গেছে, সেটা আপনারা অফ-ট্র্যাক বান্দরবান-এর ধারাবাহিক পড়তে পড়তে জেনে গেছেন। যাহোক, এই ভ্রমণের কিছু জিনিস আমাদেরকে খুব সহায়তা করেছে, আমরা মনে করি, সেগুলো আপনাদেরকেও…

বিস্তারিত

অফ-ট্র্যাক বান্দরবান ২০১২ (কিস্তি ৪)

রাসেলের বাম পায়ের পাতায় ব্যথা করছে। সম্ভবত তার পা বাঁকা হয়ে কোথাও পড়েছে, তাই ব্যাথা করছে। কিন্তু সে হাঁটতে পারছে, তাই আমাদের পরিকল্পনা ভেস্তে যাবার সম্ভাবনা নেই। আমরা আমাদের প্ল্যানেই থাকলাম। গাইড দুজনকে অনুসরণ করে আমরা একটা ত্রিপুরা পাড়ায় পৌঁছলাম। পাড়াটার নাম বিকাশ বলেছিল, কিন্তু লিখে রাখিনি তখন। বগামুখ থেকে নেমে এসে আমরা এই পাড়ার…

বিস্তারিত

অফ-ট্র্যাক বান্দরবান ২০১২ (কিস্তি ৩)

আমাদের প্রকৃত যাত্রাপথ রুমা খালের মুখ (22° 1’57.00″N, 92°24’53.48″E) থেকে শুরু বলে শেষবারের মতো আমরা সম্মিলিতভাবে হাত তুলে প্রার্থণা করে নিলাম আল্লাহ’র কাছে। স্বাভাবিকভাবেই সে প্রার্থণায় বিকাশ আর আপেল সামিল হলো না। আমরা পানিতে পা রাখলাম, ভিজিয়ে ফেললাম পরনের অ্যাংকলেট, এবং এটাও বুঝলাম, আমাদেরকে এভাবে পথে অনেক অনেকবার ভিজতে হবে, শুকাতে হবে —এগুলো গোনায় ধরা যাবে…

বিস্তারিত

অফ-ট্র্যাক বান্দরবান ২০১২ (কিস্তি ২)

শেষ পর্যন্ত সমাধান বেরুলো:        আমরা তিনজন: উদ্দেশ্য বগালেক, কিওক্রাডাং (গাইড: সিয়াম)        ওরা দুজন: উদ্দেশ্য বগামুখ পাড়া, তারপর নিজস্ব পরিকল্পিত পথ (গাইড: একজন) রাতের খাবার শেষ হলে আবু বকর ঢাকায় ভ্রমণ বাংলাদেশ-এর বড় ভাইদের সাথে যোগাযোগ করে স্থানীয় গাইডকে খবর দিলেন। সে ব্যস্ত থাকায় পাঠালো পরিচিত গাইড সুমন দত্তকে। আবু বকর আর কামরুলের পথের…

বিস্তারিত

অফ-ট্র্যাক বান্দরবান ২০১২

~ দুটো নতুন ঝরণা আর নতুন পথের দিশা ~ ৮০ ডিগ্রী খাড়া ঢাল, সারিবদ্ধ আমরা পাঁচ জন, পায়ের নিচে গুড়ি গুড়ি নুড়ি পাথরের ছড়াছড়ি, নিজের শরীরের ওজন আর ব্যাগের ওজন মিলে মাধ্যাকর্ষণের টানে নিচের দিকে টানছে; পা হড়কালে ১০০ ফুট নিচের পাথুরে খাঁদে চির সমাধি, তাও শুধু একজনের নয়, নিচে, খাড়া পাহাড়ের সাথে ঝুজতে থাকা…

বিস্তারিত

বাংলাদেশ রেলওয়ে: ভ্রমণে স্বাগতম (কিস্তি ২)

« আগের পর্ব বাংলাদেশ রেলওয়ের ট্রেনগুলো চলে এখনও অতীতাশ্রয়ে পুরোন পদ্ধতিগুলোই ব্যবহার করে অল্প-বিস্তর আধুনিক সরঞ্জাম সংযোজন করে বাংলাদেশ রেলওয়ে চলে। স্টেশনগুলোতে কম্পিউটার মনিটরে নিকটবর্তি রেললাইনগুলোতে ট্রেনের চলাচলের অবস্থা ট্র্যাক করার ব্যবস্থা করা হয়েছে, তবে এটা সমগ্র বাংলাদেশের চিত্র নয়। অনেক স্টেশনেই এখনও সেই ব্রিটিশ আমলের সরঞ্জাম ব্যবহৃত হয় যোগাযোগের প্রয়োজনে। ছোটবেলায় সিলেটের স্থানীয় প্রসৃদ্ধ…

বিস্তারিত

বাংলাদেশ রেলওয়ে: ভ্রমণে স্বাগতম

কয়েকজন বাচ্চা-কাচ্চা একসাথে হয়েছে। তারা কী জানি একটা খেলায় মেতেছে ‘ওপেন-টি-বায়োস্কোপ’ নামে। দুজন হাতে হাত মিলিয়ে মাথার উপর তুলে ধরে নিজেদের মাঝখানে তৈরি করেছে একটা তোরণ, আর বাকিরা একজনের কাঁধে আরেকজন হাত রেখে তৈরি করেছে একটা রেলগাড়ি। হয়তো পুঁ ঝিক ঝিক বলছে না, ওপেন-টি-বায়োস্কোপ বলে একটা ছড়া আওড়াচ্ছে, কিন্তু দলটা ঠিকই একটা রেলগাড়ির অনুকরণে চলছে,…

বিস্তারিত

বান্দরবান ভ্রমণ ২০১১ : পর্ব ৪

যে দুজন আমাদের গাড়িতে লিফ্‌ট চাচ্ছিল, তাদের একজন বয়স্ক মানুষ, সাথে একটা ছোট্ট ছেলে। তাদেরকে নেয়ার প্রশ্নই উঠে না, কারণ এরা স্থানীয়। কিন্তু কেন জানি আমার মনে হলো এরা আসলেই বিপদগ্রস্থ। কারণ, আমাদের গাড়ি যখন নীলাচলে, ঢাল বেয়ে উঠছিল, তখনও এরা আমাদের গাড়ি থামাতে চাচ্ছিল, লোকটার গলায় একটা ঢোল ছিল, আর ছেলেটা নিয়ন্ত্রণ করছিল লোকটিকে।…

বিস্তারিত

আবহমান বাংলার গ্রাম: পরিচিতি

ভারতের দিল্লী থেকে বন্ধুবর অমিত রায় বাংলাদেশের গ্রাম সম্পর্কে জানতে চাইলে যদি সেখানে আশ্চর্য হওয়ার কিছু থাকে, তাহলে বাংলাদেশী হওয়াসত্ত্বেয় আমার এবিষয়ে না লেখায় আশ্চর্যের সীমা থাকে না। তাই দেরিতে হলেও বাংলাদেশের তথাকথিত ৬৫,০০০ গ্রামের-খুব-অল্পটাই-দেখা-এই-আমি এই লেখায় ব্রতী হলাম। এজন্য যাবতীয় কৃতিত্ব অবশ্যই অমিত রায়ের। কিন্তু আমি আসলে হাবুডুবু খাচ্ছি, কী রেখে কী লিখব। তবু…

বিস্তারিত

বান্দরবান ভ্রমণ ২০১১ : পর্ব ৩

গাড়ি নীলগিরির চূড়ায় উঠলে একটা পার্কিং এলাকা। এখানে পার্কিংয়ের জন্য যে টাকা দিতে হবে (৳৩০০), তা আমাদেরকে বহন করতে হবে, ড্রাইভারের সাথে এমনটাই চুক্তি হয়েছিল। যাবতীয় খরচ একহাতে হচ্ছে, তাই ইফতি এগিয়ে গেলো আর্মির ছোট্ট কমান্ড পোস্টটার দিকে। সেখান থেকে আবার জনপ্রতি টিকিট (৳৫০) কেটে উপরের চূড়ায় উঠতে হয়। যারা কটেজ ভাড়া করে আসেননি, তাদেরকে…

বিস্তারিত

বান্দরবান ভ্রমণ ২০১১ : পর্ব ২

রাতেই মনে মনে সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেললাম, এদেরকে নিয়ে বগা লেকে যাওয়া যাবে না। বন্ধু সাকিবকে ফোনে জানালাম সিদ্ধান্তের কথা, সেও সায় দিল। এরকম পিছুটান নিয়ে কোনোভাবেই দুর্গম ভ্রমণে যাওয়া ঠিক হবে না, কারণ বগা লেক ভ্রমণে অনে-ক কষ্ট করতে হবে, চার-পাঁচটা পাহাড় ডিঙানো লাগবে, কম কথা না। যেহেতু একটা সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছি, তাই বাকিগুলো এখন খুব…

বিস্তারিত

বান্দরবান ভ্রমণ ২০১১ : পর্ব ১

কতজন যে যাবে তার ইয়ত্তা নেই। যাকেই বলি, সে-ই যেন যাবে। শেষ পর্যন্ত মনে হচ্ছিলো পুরো একটা গ্রামই কি যাচ্ছি নাকি? কিন্তু সব ট্যুরেই যা হয় আরকি, শেষ খেলায় থাকে হাতে গোণা ক’জন। প্ল্যানটা হলো বান্দবানের নীলগিরি আর বগা লেক (বগাকাইন হ্রদ) ভ্রমণ। বন্ধু সাকিব আর সাজ্জাদের কাছে বগা লেক-কীর্তণ শুনতে শুনতে যাওয়ার লোভ সামলাতে…

বিস্তারিত

ট্যুর টু বান্দরবান (মার্চ ২০০৮)

ভ্রমণ: বান্দরবান ও কক্সবাজার :: উদারতার মহাতটে ত্রয়ীর পদচিহ্ন :: আমার ঘরকুনো স্বভাবটাকে বেদুঈন স্বভাবে পাল্টে নিতেই কিছুটা জিদের বশবর্তী হয়ে উদ্যত হয়েছিলাম রাঙামাটি আর বান্দরবান ঘুরে দেখবো বলে। বন্ধুদের একেকজনের নানা কাজ, কেউই গেলো না। একমাত্র নাকিব রাজি: সে যে যাবে সেকথা বলাই বাহুল্য। আমার এই বন্ধুটি আনন্দে থাকাটাই জীবনের ব্রত করে নিয়েছে। ওদিকে…

বিস্তারিত